যে দেশের পুরুষদের দুই বিয়ে বাধ্যতামূলক, না মানলে হাজতবাস

সারা বিশ্বজুড়েই বিভিন্ন বৈচিত্রময় রীতি-রেওয়াজ অনুসারে বিবাহব’ন্ধনে আব’দ্ধ হন পাত্র ও

পাত্রীরা। বিয়েকে এক পবিত্র ব’ন্ধন হিসেবেই গন্য করা হয় সারা বিশ্বজুড়েই। বিশ্বের কোথাও কোথাও

বিয়ে নিয়ে এমন রীতিনীতি ও ঐতিহ্য রয়েছে, যা শুনলে চ’মকে যেতে হয়। বিশ্বে এমনও একটি দেশ আছে, যেখানে পুরুষদের দুইজন নারীকে

বিয়ে ক’রতেই হয়? শুধু তাই নয়, যদি এই আদেশ অমান্য করা হয়, তাহলে সেই ব্য’ক্তিকে জে’লে পর্যন্ত যেতে হতে পারে। অ’বাক হচ্ছেন? অ’বাক হলেও

এটাই সত্যি। আফ্রিকান দেশ ইরিত্রিয়াতে পুরুষদের ন্যূনতম দুটি বিয়ে করা বাধ্যতামূলক আফ্রিকান দেশ ইরিত্রিয়াতে পুরুষদের ন্যূনতম দুটি বিয়ে করা বাধ্যতামূলক। যদিও

এর পেছনে একটি গু’রুতর কারণ রয়েছে, আর তা হলো এখানে নারীর তুলনায় পুরুষের অনুপাত খুবই কম। এই কারণে একজন পুরুষকে এখানে দুইজন নারীকে বিয়ে ক’রতেই হয়। ইরিত্রিয়া সরকার এ জন্য একটি আ’ইনও প্রণয়ন করেছে।

আবার যারা এই সরকারি আ’ইন মানে না তাদের শা’স্তি দেওয়ার বিধানও আছে। যদি পুরুষ দুজন নারীকে বিয়ে না করে, তাহলে তাদের জে’লেও হতে পারে। এছাড়াও, যদি প্রথম স্ত্রী, দ্বিতীয় বিবাহের ব্যাপারে কোনো ধ’রনের ঝামেলা সৃষ্টি করার চেষ্টা করে, তাহলে নারীদেরও যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের মতো ক’ঠোর শা’স্তি দেওয়া যেতে পারে।

আফ্রিকান দেশ ইরিত্রিয়াতে পুরুষ

এই আ’ইনের কারণে দেশে দুটো বিয়ে করা পুরুষের সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। যদিও বিশ্বের অন্যান্য দেশে এই আ’ইনের কারণে ইরিত্রিয়া অনেক স’মালোচিত হচ্ছে, কিন্তু এখন পর্যন্ত ইরিত্রিয়া সরকার এই আ’ইন প্রত্যাহারের ব্যাপারে কোনো সিদ্ধা’ন্ত নেয়নি।

সরকারি সূত্রে জা’নানো হয়েছে, দেশে পুরুষের আকাল পড়েছে। এর আগে দীর্ঘদিন ইথিওপিয়ার স’ঙ্গে যু’দ্ধের কারণে অনেক পুরুষ হারিয়েছে এরিত্রিয়া। ক্রমশ পুরুষশূন্য হয়ে পড়ছে এই দেশ। তাই দেশের স্বার্থেই এই আ’ইন বলবৎ করল সরকার।

এখানকার পুরুষের বাধ্য করা হতো দুই বিয়ে করার জন্য

প্রসঙ্গত, ইরিত্রিয়ার জনসংখ্যা ৬৪ লাখেরও কিছু কম। এর একদিকে সুদান আর ইথিওপিয়া, অন্য দিকে জিবুটি, লোহিত সাগর। ইথিওপিয়ার থেকে আ’লাদা হয়ে স্বাধীন হয়ে এর জ’ন্ম হয় ১৯৯৩ সালে।

তবে বিবিসি এই রিপোর্ট নিয়ে তাদের অনুসন্ধানে এটিকে গু’জব বলে প্রমান পেয়েছে। তারা তাদের রিপোর্টে বলেছে, ইরিত্রিয়াতে পুরুষরা কমপক্ষে দুইজন নারীকে বিয়ে ক’রতে বাধ্য করবে এমন একটি মিথ্যা গু’জব ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল। যা কমপক্ষে চারটি দেশকে আজ পর্যন্ত আঘা’ত করেছে এবং প্রকৃতপক্ষে ইরাকে শুরু হয়েছে, যা অকল্পনীয় এবং বানোয়াট।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*